তীব্র ভাঙ্গনে পাল্টে যাচ্ছে বকশীগঞ্জের সাজিমারার মানচিত্র


Munna প্রকাশের সময় : ০৬/০৯/২০২৩, ৭:০৯ অপরাহ্ণ /
তীব্র ভাঙ্গনে পাল্টে যাচ্ছে বকশীগঞ্জের সাজিমারার মানচিত্র

মোহাম্মদ আসাদ-বকশীগঞ্জ।।জামালপুরের বকশীগঞ্জ উপজেলায় তীব্র নদী ভাঙ্গনের কারণে পাল্টে যাচ্ছে মানচিত্র । প্রতিনিয়ত নদীর সাথে আত্মসমর্পণ করে বিলীন হয়ে যাচ্ছে ঘরবাড়ি রাস্তাঘাট ও ফসলের ক্ষেত। আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছে নদীর পাড়ে বাস করা মানুষ।

জানা যায় ,বকশীগঞ্জে দশানী নদী ,ব্রহ্মপুত্র নদ ও জিঞ্জিরাম নদীর পানি কমতে শুরু করলেও ভাঙ্গন বেড়েছে বহুগুণ । তীব্র নদী ভাঙ্গনের ফলে উপজেলার নিলক্ষিয়া ইউনিয়নের সাজিমারা গ্রামের মানচিত্র-ই পাল্টে যাচ্ছে । দিশেহারা সাজিমারার এলাকাবাসী । নদী ভাঙ্গনের কারণে অনেকেই নিঃস্ব হয়ে গেছে । অনেকের নতুন বাড়ি বানানোর সামর্থ্য নেই বাস করছে গাছের নিচে । এছাড়াও নিলক্ষিয়া ইউনিয়নের কুশলনগর, গোমের চর, মেরুরচর ইউনিয়নের শেখেরচর, মাইছেনির চর, ভাটি কালকিহারা, খেওয়ারচর, আউলপাড়া, বাঘাডুবা সাধুরপাড়া ইউনিয়নের আইড়মারী,কুতুবেরচর,বাংগাল পাড়া,আইরমারী, খান পাড়া, চর আইরমারী, চর কামালের বাত্তী এলাকায় নদী ভাঙ্গন প্রকট আকার ধারন করেছে। নদী গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে প্রায় অর্ধশতাধিক বসত ভিটা। অনেকেই আতঙ্কে নির্ঘুম রাত কাটাচ্ছেন।

অসহায় কন্ঠে ভাঙ্গনে ক্ষতিগ্রস্ত সাজিমারা গ্রামের বাসিন্দা লক্ষিন্দর ,সোনো মিয়া , হাজেরা বেগম ,নুর মোহাম্মদ,আজগর আলী,আব্দুল্লাহ, জুহুরল জানান , বেশ কয়েকবার তাঁরা নদী ভাঙ্গনের শিকার হয়েছে নদীতে তাঁদের ঘরবাড়ি ,ফসলের ক্ষেত ,গাছপালা ও রাস্তাঘাট বিলীন হয়ে যাচ্ছে । নদী ভাঙ্গন রোধে এখন পর্যন্ত কোনো স্থায়ী ব্যবস্থা নেয়া হয়নি । দ্রুত সময়ের নদী ভাঙ্গন রোধে ব্যবস্থার গ্রহণ না করা হয় তাহলে অল্প কিছুদিনের মধ্যেই সাজিমারা গ্রাম নদীর সাথে বিলীন হয়ে যাবে ।
নিলক্ষিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব নজরুল ইসলাম সাত্তার জানান,সাজিমারা ,কুশলনগর ও ঘুমের চর এলাকায় প্রতিবছর-ই নদী ভাঙ্গনে ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে আসছে । চাষের জমি ও গাছপালা চলে গেছে নদীতে। নদী ভাঙ্গন রোধের দাবি দীর্ঘদিনের। স্থায়ী সমাধান চান বাসিন্দারা। বিষয়টি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।

বকশীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ( ইউএনও ) অহনা জিন্নাত জানান,নদীতে যাদের ঘর ভেঙ্গে যাচ্ছে তাদের তালিকা করা হচ্ছে তাদের সরকারি সহায়তা দেয়া হবে এবং নদী ভাঙ্গন রোধে পানি উন্নয়ন বোর্ড কাজ করছে ।