২ বছরের কারাদন্ডের জেরে রাহুল গান্ধীর সাংসদ পদ খারিজ


Munna প্রকাশের সময় : ২৪/০৩/২০২৩, ৮:১০ অপরাহ্ণ /
২ বছরের কারাদন্ডের জেরে রাহুল গান্ধীর সাংসদ পদ খারিজ

সুজন চক্রবর্তী, আসাম( ভারত)

বহু আলোচিত মানহানির মামলায় ২ বছরের কারাদন্ডের জেরে খারিজ হয়ে গেল প্রাক্তন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধীর সাংসদ পদ। শুক্রবার রাহুলের সাংসদ পদ খারিজের সুপারিশ করেছে লোকসভার সচিবালয়। ভারতের গুজরাটের সুরাটের আদালত রাহুল গান্ধীকে দোষী সাব‍্যস্ত করার পর থেকেই তাঁর উপর সাংসদ পদ বাতিলের কার্যক্রম চলছিল। কংগ্রেসের তরফে ও আশঙ্কা প্রকাশ করা হচ্ছিল, রাহুলকে সংসদ থেকে দূরে রাখার উদ্দেশ্যেই বিচার বিভাগকে প্রভাবিত করার চেষ্টা করছে বিজেপি। সেই আশঙ্কাই সত‍্যি হল। শুক্রবার সংসদের সচিবালয় থেকে বিবৃতিতে প্রকাশ, বৃহস্পতিবারই রাহুলের সাংসদ পদ খারিজ হয়েছে। তাঁর ওয়ানড লোকসভা কেন্দ্রটি এখন সাংসদ শূন‍্য। আসলে, লোকসভার সচিবালয় নিয়ম মেনেই পদক্ষেপ করেছে। ভারতের জনপ্রতিনিধি আইনের সেকশন ৮ (৩) অনুযায়ী, কোনও সাংসদ যদি যে কোনও অপরাধে ২ বছর বা তাঁর বেশি কারাদন্ডে দন্ডিত হন, তাহলে তাঁর সাংসদ পদ বাতিল হতে পারে। শুধু তাই নয়, ওই ব‍্যক্তি পরবর্তী ৮ বছর লোকসভা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা ও করতে পারবেন না। অর্থাৎ উচ্চতর কোনও আদালতে এই রায় বাতিল না হলে ২০২৪ ও ২০২৯ সালের লোকসভার লড়াই থেকেও রাহুল ছিটকে যেতে পারেন। আর সেটা রাহুল ও কংগ্রেসের জন‍্য আরও বড় ধাক্কা হতে পারে। যদিও রাহুল গান্ধীর কাছে উচ্চতর আদালতে আবেদন করার সুযোগ রয়েছে। কংগ্রেস সূত্রে প্রকাশ, রাহুল এই রায়ের বিরুদ্ধে উচ্চতর আদালতে আবেদন করবেন। প্রয়োজনে সুপ্রিম কোর্টে ও যেতে পারেন। কংগ্রেস নেতা জয়রাম রমেশ ইতিমধ্যেই টুইট করে বলে দিয়েছেন, তাঁরা রাজনৈতিকভাবে এবং সাংবিধানিকভাবে এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে লড়াই করবেন। আইন বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ভারতীয় দন্ডবিধির যে ৪৯৯ নম্বর ধারায় কংগ্রেস সাংসদকে ২ বছরের সাজা দেওয়া হয়েছে, সেই ধারায় ২ বছরের শাস্তি হওয়াটা খুব বিরল।