রূপগঞ্জের মানুষকে চাকুরী দিয়ে ২৬ মাস জেল খেটেছি — তৈমুর


Sokal Pratidin প্রকাশের সময় : ১১/১২/২০২৩, ৬:৩২ অপরাহ্ণ /
রূপগঞ্জের মানুষকে চাকুরী দিয়ে ২৬ মাস জেল খেটেছি — তৈমুর

স্টাফ রিপোর্টার
দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও অংশগ্রহনমূলক হবে বলে প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সেলক্ষেই বিরোধী দল হওয়া স্বত্তেও নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে তৃণমুল বিএনপি। যদি প্রতিশ্রুতির ব্যতয় ঘটে আর চৌদ্দ-আঠারোর মত নির্বাচন হয় তাহলে নিয়মতান্ত্রিক ভাবে সারাদেশে দুর্বার আন্দোলন গড়ে তোলা হবে বলে জানিয়েছেন দলটির মহাসচিব এ্যাড.তৈমুর আলম খন্দকার। সোমবার দিনব্যাপী উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় কর্মী সমর্থক ও নিকট আত্বীয় স্বজনের সাথে কুশল বিনিময় শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা জানান।

তিনি বলেন, আমরা অনেকই ক্ষমতাসীন মন্ত্রীদের প্রতিধন্ধী হয়ে নির্বাচন করছি। মন্ত্রীরা যদি বাহুবল প্রয়োগ করে আর আইনশৃঙ্খলা বাহীনি যদি বিনা অভিযোগে যাকে তাকে যখন তখন গ্রেফতার করে তাহলে সুষ্ঠু নির্বাচনের পরিবেশ বিঘ্নিত হবে। এছাড়াও কোন প্রকার অভিযোগ ছাড়া বিএনপির নেতাকর্মীদের গণহারে গ্রেফতার করা হচ্ছে, সাজা দেয়া হচ্ছে। বিনা অপরাধে এই গণহারে গ্রেফতার ও সাজা দেয়া বন্ধ করতে হবে।

দলটির মহাসচিব আরো বলেন, রূপগঞ্জের মানুষকে চাকুরী দিয়ে ২৬ মাস জেল খেটেছি। মানুষের জমি রক্ষার জন্য ভুমি খেকোদের বিরুদ্ধে আদালতে লড়েছি। কখনো কোন দিন কারো কাছে কিছু চাইনি বা নিইনি। অথচ পনেরো বছর ধরে রূপগঞ্জে পরিবারতন্ত্র কায়েম করেছে মন্ত্রী গাজী। তাদের একটা পরিবারে বাবা মন্ত্রী ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি, মা পৌরসভার মেয়র ও উপজেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সভাপতি, ছেলে উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি। ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগের গুরুত্বপূর্ন পদ দখলে নিয়ে প্রভাব খাটিয়ে উপজেলার বেশ কয়েকটি মৌজায় জমি বিক্রি বন্ধ করে দিয়েছে। জোর পুর্বক বালু ভরাট করেছে। বর্তমানে সাধারণ মানুষ একটি পরিবারের কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছে। রূপগঞ্জবাসী পরিবারতন্ত্র থেকে মুক্তি চায়।

ইউএনও-ওসিদের বদলি প্রসঙ্গে প্রধান নির্বাচন কর্মকর্তাকে সাধুবাধ জানিয়ে তৈমুর আলম খন্দকার বলেন, সরকারি কর্মকর্তারা দীর্ঘদিন একস্থানে কর্মরত থাকার সুবাধে স্থানীয় এমপি ও নেতাকর্মীদের সাথে সখ্যতা গড়ে ওঠে। তাতে নির্বাচনে একপাক্ষিক প্রভাব বিস্তারের সম্ভাবনা থাকে। তবে ইউএনও-ওসিদের বদলি আসন্ন নির্বাচনকে সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ করতে সহায়ক হবে বলে প্রত্যাশা করেন তিনি।