মুফতী মাসুম বিল্লাহ : ওলামা লীগের সভাপতি প্রার্থী


Munna প্রকাশের সময় : ১৬/০৪/২০২৩, ৪:১১ অপরাহ্ণ /
মুফতী মাসুম বিল্লাহ : ওলামা লীগের সভাপতি প্রার্থী

 

আগামী ২৯ এপ্রিল ২০২৩ বাংলাদেশ আওয়ামী ওলামা লীগের জাতীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। এই সম্মেলনে সংগঠনের সভাপতি প্রার্থী কয়েকজন। এর মধ্যে রাজনৈতিক কর্মী থেকে উঠে আসা সংখ্যা একেবারেই নেই বললে চলে।ব্যাতিক্রম মুফতী মাসুম বিল্লাহ নাফিয়ী। একজন মুক্তিযোদ্ধার সন্তান, সাবেক ছাত্রনেতা। পারিবারিক ভাবেই তিনি মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও বঙ্গবন্ধুর আদর্শ লালন করে। বীর চট্রলার উপকূলীয় অঞ্চল প্রকৃতির লীলাভূমি সন্দ্বীপ উপজেলার আসকর আলী বাড়ীর বীর মুক্তিযোদ্ধা মরহুম মৌলভী বেলায়েত হোসেন এর পুত্র। মুফতী নাফিয়ী অত্যন্ত মেধাবী, সৎ ও যোগ্য সংগঠক। মুক্তিযুদ্ধের চেতনার প্রশ্নে সে অটুট। অসম্প্রদায়িকবোধে সকল ধর্মের ধর্মীয় নেতাদের সাথে আছে সুসম্পর্ক। এছাড়াও সর্বস্তরের আলেম-ওলামা পীর-মাশায়েখদের কাছেও রয়েছে তার গ্রহণ যোগ্যতা। ছাত্র রাজনীতি থেকে উঠে আসা মূফতী মাসুম বিল্লাহ নাফিয়ী বর্তমানে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ধর্ম বিষয়ক উপকমিটির সদস্য ও বাংলাদেশ আওয়ামী ওলামা লীগের সম্মেলন প্রস্তুতি আহবায়ক কমিটি’র যুগ্ম আহ্বায়ক। এর আগেও ওলামা লীগের সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির সদস্য সচিব হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছে। জয় বাংলা মঞ্চের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি, বঙ্গবন্ধু নাগরিক সংহতি পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক, বঙ্গবন্ধু ওলামা পরিষদের সাধারণ সম্পাদক হিসাবে আওয়ামী লীগ ও জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শ বাস্তবায়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে। রাজনৈতিক সংগঠন ছাড়াও নানাবিধ সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতৃত্ব দিচ্ছেন এবং সমাজ ও রাষ্ট্রের কল্যাণে সকল সময় নিবেদিত থাকেন তিনি। প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান সন্দ্বীপ ফাউন্ডেশন বাংলাদেশ (এনজিও), উপদেষ্টা বাংলাদেশ সচেতন নাগরিক কমিটি, ন্যাশনাল ফ্রেন্ডশিপ সোসাইটি, বাংলাদেশ স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদরাসা শিক্ষক সমিতি, পিডিপি-পথকলি ডেভেলপমেন্ট প্রজেক্ট, বাংলাদেশ কওমী মাদ্রাসা শিক্ষক সমিতি, কেন্দ্রীয় পরিষদ ও ইসলামিক ফাউন্ডেশনের আওতাধীন প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত ইমাম সমিতির সাবেক কেন্দ্রীয় আহবায়ক। আধ্যাত্মিকতায় সূফী ধারার বিশ্বাসী মুফতী মাসুম বিল্লাহ নাফিয়ী ভারতের সেরহিন্দ শরিফের খলিফা, সিনিয়র সহ-সভাপতি, হযরত আলী (রঃ) তাছবীদুল কোরআন আদর্শ মাদ্রাসা, আজীবন সদস্য ইসলামিক ফাউন্ডেশন বাংলাদেশ, প্রধান সমন্বয়ক বাংলাদেশ সোস্যাল অ্যাক্টিভিস্ট ফোরাম, প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান ইউনাইটেড ত্বরীকত মিশন বাংলাদেশ, মহা-পরিচালক, আঞ্জুমানে দাওয়াতুদ দ্বীন বাংলাদেশ, সাধারণ সম্পাদক, বাংলাদেশ আশিক্কীনে আউলিয়া পরিষদ, অন্যতম উপদেষ্টা ভাড়াটিয়া ঐক্য পরিষদ ও সভাপতি বাংলাদেশ সচেতন প্রগতিশীল আলেম সমাজ। রাজনৈতিক জীবনে স্বৈরাচার এরশাদ বিরোধী আন্দোলন থেকে শুরু করে বিএনপি-জামাতের অপশাসন ও দু:শাসনের বিরুদ্ধে সকল সময়ই রাজপথে সরবে অবস্থান করেছেন তিনি। মুক্তিযুদ্ধের চেতনার স্বপক্ষের দেশ-প্রেমিক আলেম-ওলামা, পীর মাশায়েখদের ঐক্যবদ্ধ করে দেশ ও আওয়ামী বিরোধী অপপ্রচার রোধে সর্বকালের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালি মহান মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিক নায়ক জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হাতে গড়া শহীদ বুদ্ধিজীবী ডা. মাওলানা ওলিউর রহমানের নেতৃত্বাধীন পূর্ব পাকিস্তান আওয়ামী ওলামা পার্টি থেকে বাংলাদেশ আওয়ামী ওলামা লীগের প্রতিষ্ঠায় সক্রিয় ভূমিকা (১৯৯৪-১৯৯৬) উল্লেখযোগ্য। বিএনপি-জামাত ৪ দলীয় জোট সরকারের প্রতিহিংসার শিকার হয়ে বারবার শাররিক নির্যাতন ও একাধিকবার গ্রেফতার হন (২০০১-২০০৬)। ২৩ বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে অনুষ্ঠিত বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সন্ত্রাস বিরোধী শান্তি সমাবেশে বিএনপি-জামাত সরকার কর্তৃক গ্রেনেড হামলায় আহত (২০০৪)হন তিনি। মুফতী মাসুম বিল্লাহ নাফিয়ী সভাপতি নির্বাচিত হলে অবহেলিত ওলামা লীগের নেতাকর্মীরা মূল্যায়িত হবে এবং সকল ধর্মের ধর্মীয় নেতাদের সমন্বয়ে জাতির পিতার অসম্প্রদায়িক সোনার বাংলা বিনির্মাণে বঙ্গকন্যার স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার সহায়ক শক্তি হিসেবে কাজ করবে ওলামা লীগ। মেধা ও পরিকল্পনা দিয়ে দেশে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির ধারা চলমান রাখতে আওয়ামী লীগের পাশাপাশি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে অধিকাংশ ওলামা লীগের নেতাকর্মীরা মনে করে।