বন্দর কুখ্যাত সন্ত্রাসী স্টার্ন রাজু’র হামলায় ব্যাবসায়ী রাহিম সহ একাধিক আহত আসামীরা


Munna প্রকাশের সময় : ০১/০৪/২০২৩, ১১:৩৫ অপরাহ্ণ /
বন্দর কুখ্যাত সন্ত্রাসী স্টার্ন রাজু’র হামলায় ব্যাবসায়ী রাহিম সহ একাধিক আহত আসামীরা

 অধরা স্টাফ রিপোর্টারঃঅভিযোগ সূত্রে জানা যায় বন্দর থানা শাহী মসজিদ নূর বাগের কুখ্যাত সন্ত্রাসী স্টার্ন রাজু’র হামলায় গত ১৫ মার্চ বন্দর রেল লাইন এলাকায় রাহিম হোসেন নামে এক ব্যবসায়ীর কাছ থেকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে আশি হাজার ছয়শত টাকা নগদ অর্থ সহ দুইটি মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নেয় ও প্রানে মেরে ফেলার চেষ্টা চালিয়ে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে যখম করে। বাদশা মিয়ার ছেলে আহত রাহিম হোসেন বলেন আমি বন্দর বাজারে দীর্ঘদিন যাবত সু নামের সাথে ব্যবসা করে আর্সছি সেদিন আমার মাহাজনকে বিল পরিশোধ করতে টাকা নিয়ে বের হলে রেল লাইন স্টার্নে গিয়ে রিক্সা থামলেই সন্ত্রাসী স্টার্ন রাজু সহ তার নেতৃত্বে একদল সন্ত্রাসী অস্রহাতে আমাকে ধাওয়া করে পরে আমি প্রান বাঁচাতে পুকুরে ঝাপ দেই ওখানে ও রক্ষা পাইনি সন্ত্রাসীদের হাত থেকে। আমাকে পানি থেকে উঠিয়ে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে রক্তাক্ত করে রেখে পালিয়ে যায়। পরে স্থানীয় লোকজন এসে আমাকে উদ্ধার করে স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করান। অভিযোগ কারী লতা বেগম (৪৩) বলেন আমার ছেলেকে সন্ত্রাসীরা জীবন্ত মেরে ফেলেছে ডান হাতটিতে একাধিক যখম করেছে, স্থানীয় হাসপাতাল থেকে ঢাকা মেডিকেল কলেজে পাঠালে হাসপাতাল থেকে ডান হাতে সাতটি নার্ট ও স্টীলের প্লেট লাগানো হয় আমার ছেলের জীবন এক প্রকার শেষ। দিন দুপুরে একদল সন্ত্রাসী অস্রহাতে আমার বুকের ধন মানিককে এভাবে মেরে গেলো কেউ বাঁচাতে আসলোনা। বিচার ব্যবস্থা আজ কোথায়? কোথায় থানা পুলিশ মামলার ১৭ দিন পার হয়ে গেলেও প্রধান ১ নাম্বার আসামি নুর ইসলাম (পাতলার) ছেলে মাধক কারবারী রাজু সহ সকল আসামীরা অধরা। এমপি মহোদয়ের কাছে আমি আমার ছেলের যখমকারী মাদক কারবারী কুখ্যাত সন্ত্রাসীদের বিচার চাই তাদের যেন দ্রুত আইনের আওতায় এনে উপযুক্ত শাস্তি দেওয়া হয়। মূল আসামীরা প্রকাশ্যে দিবালোকে ঘুরছে আর পুলিশ নিরব ভূমিকা পালন করছে বিষয়টি সচেতন মহল সহ এলাকাবাসীর মধ্যে আতংক বিরাজ করছে। এ বিষয়ে জানতে বন্দর থানা ভারপ্রাপ্ত অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ আবু বকর সিদ্দিককে একাধিক বার কল করে পাওয়া যায়নি।