নন্দীগ্রামে সেই শিশু হত্যার ২৪ ঘন্টার মধ্যে চাঞ্চল্যকর রহস্য উন্মোচন


Munna প্রকাশের সময় : ১৯/০২/২০২৩, ২:০৩ অপরাহ্ণ /
নন্দীগ্রামে সেই শিশু হত্যার ২৪ ঘন্টার মধ্যে চাঞ্চল্যকর রহস্য উন্মোচন

মোঃ আব্দুল গফুর, নন্দীগ্রাম (বগুড়া) প্রতিনিধি।

বগুড়া নন্দীগ্রামে ২৪ ঘন্টার মধ্যে চাঞ্চল্যকর ৪ বছরের শিশু মুনিম হত্যার রহস্য উন্মোচন করল নন্দীগ্রাম থানা পুলিশ। হত্যার সাথে সরাসরি জরিত আমিনুল ইসলাম (২০) কে গ্রেফতার করা হয়েছে। গ্রেফতারকৃত আসামী ছোট চাঙ্গুইর গ্রামের আনছার আলীর ছেলে। সে হত্যার কথা স্বীকার করে স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দী দিয়েছে।গত শনিবার (১৮ ফেব্রয়ারী) নন্দীগ্রাম থানায় প্রেস ব্রিফিং করেন বগুড়া সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. শরাফত। প্রেস ব্রিফিংয়ে উল্লেখ করেন, হত্যাকারী আমিনুল এর পরিবারের সাথে প্রতিবেশী আশরাফ এর পরিবারের প্রায়ই ঝগড়া-বিবাদ লেগেই থাকতো। উক্ত বিবাদে নিহত শিশুর পিতা ইদ্রিস আলী ন্যায় সংগত ভাবে আশরাফ এর পবিবারের পক্ষ নেওয়ায় এবং আমিনুলের পরিবারের পক্ষ না নেওয়ায় ইদ্রিস আলীর উপর গোপনে বিরোধ ও ক্ষোভ থেকেই এই হত্যাকান্ড ঘটায়।মূলত অতিরিক্ত ক্ষোভের কারনে জেদি রাগি ও মানুষিক ভাবে অস্থিতিশীল ব্যক্তিত্বের অধিকারী হত্যাকারী আসামী আমিনুল গত বুধবার (১৫ই ফেব্রয়ারী) ঘটনার দিন সকাল ৮টার সময় তাদের বাড়ির সামনে ইটের রাস্তায় ইদ্রিস আলীর ৪ বছরের শিশু সন্তান মুনিম কে খেলনা রিক্সা নিয়ে খেলতে দেখে। এসময় কৌশলে পোষ্ট অফিসের পাশে এরশাদ এর বাড়ির পিছনে টয়লেটের কাছে নিয়ে অর্ধেক ভাঙ্গা ইট দিয়ে শিশু মুনিম এর মাথায় আঘাত করে হত্যা করে। পরবর্তীতে মৃত শিশুটিকে কোলে করে পোষ্ট মাষ্টার এর বাড়ির পাশ দিয়ে জাহিদুলের বাড়ির উত্তর পশ্চিম কোনে বাউন্ডারী থাকা টয়লেটের রিংপাটের টাংকির ভিতর লুকিয়ে রাখে। শিশুটির পরিবারের লোকজন খোঁজাখুজির এক পর্যায়ে সেখান থেকে মৃত শিশুটিকে উদ্ধার করে।এই ঘটনায় গত বৃহস্পতিবার (১৬ই ফেব্রয়ারী) শিশুটির পিতা ইদ্রিস আলী বাদী হয়ে ৩০২/২০১ ধারায় পেনাল কোর্ট রুজু করে। অত্র মামলায় নন্দীগ্রাম থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আনোয়ার হোসেনের দিক-নির্দেশনায় থানা পুলিশ ও কুমিড়া পুন্ডিতপুকুর পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের চৌকস টিম নিরবিচ্ছিন্ন ভাবে দক্ষতার সহিত তদন্তকার্য্য পরিচালনা করে।প্রথম দিকে যেকোন ভাবে বাড়ির ভিতরে দূর্ঘটনা জনিত হত্যার পর লাশ গোপন করা হয়েছে মর্মে অনুমান করা হলেও ঘটনাস্থল থেকে প্রাপ্ত আলামত পর্যালোচনা ও পারিপার্শিকতায় বিষয়টি পরিকল্পিত হত্যা বিবেচনায় তদন্তকারী টিমের দূরদর্শিতা, বিচক্ষনতা, দক্ষতা দিয়ে নিরালস পরিশ্রমের মাধ্যমে হত্যাকারীকে সনাক্ত ও গ্রেফতারের মাধ্যমে চাঞ্চল্যকর ৪ বছের শিশু মুনিম হত্যার রহস্য উন্মোচন করা হয়েছে। হত্যাকারী আসামী ও আসামীর পিতা থানা পুলিশের কাছে হত্যার বিস্তারিত ঘটনা শিকার করেছে। পরবর্তী আইনগত কার্যক্রম চলমান রয়েছে।প্রেস বিফিংয়ে উপস্থিত ছিলেন, নন্দীগ্রাম থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আনোয়ার হোসেন, কুমিড়া পুন্ডিতপুকুর পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ মোস্তাফিজুর রহমান, থানার তদন্ত অফিসার খায়রুল ইসলাম, এসআই সাহারুল আলম প্রমূখ।