উত্তরা আব্দুল্লাহপুরে লস্কর বাহিনী বেপরোয়া পুলিশের ভুমিকা নিরব


Munna প্রকাশের সময় : ১৯/০৩/২০২৩, ৮:১৩ অপরাহ্ণ /
উত্তরা আব্দুল্লাহপুরে লস্কর বাহিনী বেপরোয়া পুলিশের ভুমিকা নিরব

নিজস্ব সংবাদদাতা। ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন উত্তরা পূর্ব থানাধীন আব্দুল্লাহপুর বেড়িবাঁধ সংলগ্ন শিকদারবাড়ী বস্তির বাসিন্দা লস্কর।সে শেরপুর জেলার শ্রীবরদী থানার লঙ্গরপাড়া গ্রামের মৃত্যু কুতুব আলীর ছেলে।সে দীর্ঘদিন ধরে আব্দুল্লাহপুর শিকদারবাড়ী বস্তি ৮ নং সেক্টরে পরিবার সহ বসবাস করিয়া আসছে।

লস্কর আব্দুল্লাহপুরে চাঁদাবাজী ছিনতাই সহ বিভিন্ন অপকর্মের মুল নায়ক হিসাবে কাজ করে।অত্র এলাকায় তার একটি নিজস্ব একটি বাহিনী রয়েছে,লস্কর বাহিনী।এই বাহিনী প্রায় ১৫ থেকে ২০ জন সক্রিয় সদস্য নিয়ে গঠিত।লস্কর তার প্রধান সে আব্দুল্লাহপুর বেড়িবাঁধ থেকে কোটবাড়ী রেল লাইন পর্যন্ত রাস্তার পাশে ফুটপাতে গড়ে উঠা কাঁচামালের দোকান,ফলের দোকান, মুরগির দোকান চায়ের দোকান সহ প্রায় ১শ দোকান থেকে প্রতিদিন প্রতিটি দোকান থেকে ৩ থেকে ৪শ টাকা চাঁদা তোলে।

কোন দোকানদার যদি টাকা দিতে অস্বীকার করে তাহলে তাকে মেরে সেখান থেকে তুলে দেয় বলে একাধিক অভিযোগ পাওয়া গেছে।আর লস্কর উত্তরা পূর্ব থানা পুলিশকে ম্যানেজ করে চালিয়ে যাচ্ছে তার সকল অপকর্ম।লস্কর এর বিরুদ্ধে কেউ থানায় গিয়ে অভিযোগ করলে পুলিশ কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করে না।এ বিষয়ে সরোজমিনে গিয়ে জানা যায় যে লষ্কর বাহিনীর বিরুদ্ধে একাধিক মামলা রয়েছে বলে জানা জায়।

অনুসন্ধানে বেরিয়ে আসে লস্কর বাহিনীর বিরুদ্ধে একটি চাঞ্চল্যকর তথ্য,তথ্য অনুসারে জানা যায় যে। গত ১৪ই মার্চ ২০২২ তারিখে উত্তরা দক্ষিণখান থানায় লষ্কর বাহিনীর বিরুদ্ধে একটি মামলা রয়েছে মামলার বিবরণে বলা হয়েছে উত্তরা পূর্ব থানার পুলিশ ও দক্ষিনখান থানার পুলিশ বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে (৭৫ গ্রাম গাঁজাসহ দুইজন কে গ্রেফতার করে পরবর্তীতে লস্কর বাহিনী টের পেয়ে পুলিশের উপর হামলা চালিয়ে এক পুলিশ সদস্যর মাথা ফাটিয়ে হ্যান্ডকাপ সহ দুইজন আসামী কে নিয়ে পালিয়ে যায়।

এ বিষয়ে উত্তরা দক্ষিনখান থানায় একটি মামলা হয়েছিল মামলা নং ৩২,১২৫ ও মামলার ধারা ১৪৩,১১৪,১৮৬,২২৪,৩০৭,৩৩২,৩৩৩,৩৫৩ পেনাল কোট-১৮৬০, জেল থেকে বেরিয়ে এসে আরো বেপরোয়া হয়ে উঠেছে লস্কর বাহিনী।আরো একটি অভিযোগ সূত্রে জানা যায় যে গত ২৪-০২-২০২৩ তারিখে দুপুর ১২ ঘটিকার সময় ছোট ভাইয়ের ঘরে ঢুকে ছোট ভাইয়ের বউকে বিবস্ত্র করে মারধর ও ৮০,০০০ হাজার টাকা চাঁদা দাবী করেন।এ বিষয়ে উত্তরা পূর্ব থানায় একটি অভিযোগ রয়েছে বলে জানা যায় কিন্তু উত্তরা পূর্ব থানার পুলিশ কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করেননি বলেও জানা যায় এমন অভিযোগ হাজারো রয়েছে লস্কর বাহিনীর বিরুদ্ধে।

লষ্কর বাহিনীর অত্যাচারে অতিষ্ঠ এলাকাবাসী। লস্করের বিরুদ্ধে কেউ মুখ খুলতে চাই না ভয়ে, কারণ মুখ খুললে তার বাহিনী লেলিয়ে দিবে অথবা পুলিশ বাহিনী দিয়ে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানী করবে। উত্তরা পূর্ব থানা পুলিশ লস্করের কথায় উঠে বসে।নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ব্যবসায়ী জানায় লস্করের সাথে উত্তরা পূর্ব থানা পুলিশের সাথে গভীর সম্পর্ক।

কারণ ফুটপাত থেকে চাঁদা তুলে পুলিশকে দেয়।আমরা এলাকার সাধারণ দোকানদার তার কাছে কিছুই না, তাই আমরা কোন প্রতিবাদ করতে পারি না।এ বিষয়ে লস্কর বাহিনীর প্রধান লস্কর এর সাথে কথা বলার চেষ্টা করা হলে তিনি কথা বলতে রাজী হননি।তবে তিনি গরম গলায় বলেন আপনি আমার বিরুদ্ধে নিউজ করবেন করেন তাতে আমার কিছুই যায় আসে না।

আমি থানা পুলিশ ম্যানেজ করেই সব কাজ করি।আপনার মতো সাংবাদিক আমার বিরুদ্ধে নিউজ করে কি করতে পারবেন আমি দেখবো?লস্কর বাহিনীর বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করতে প্রশাসনের সু-দৃষ্টি কমনা করছেন সচেতন মহল।